নিরাপদ নোয়াখালী চাই সংগঠনের ‘মানবতার ভ্রাম্যমান দেয়ালের’ পথ চলা শুরু

 

বিজে২৪নিউজ:

 

নোয়াখালী,লক্ষীপুর,ফেনী জেলা নিয়ে গঠিত বৃহত্তর নোয়াখালীর সর্ববৃহৎ সংগঠন “নিরাপদ নোয়াখালী চাই” এর মানবতার ভ্রাম্যমান দেয়ালের পথচলা শুরু হয়েছে ১লা জানুয়ারী থেকে। নোয়াখালীর জেলা শহর মাইজদীর মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা থেকে  মানবতার ভ্রাম্যমান এই দেয়ালের পথচলা শুরু । বিজয় মেলা থেকে মাইজদী বাজার-একলাশপুর-জয়নাল আবেদিন মেমোরিয়াল হয়ে এটি এখন অবস্থান করছে বেগমগঞ্জের চৌরাস্তায় বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন চত্বরে। ধারাবাহিক ভাবে এটি ঘুরবে সমগ্র নোয়াখালীতে।

 

এখান থেকে গরিব অসহায়রা বিনা মূল্যে পোশাক নিতে পারবেন। আর গরিবদের জন্য পোশাক দিতে পারবেন সামর্থ্যবানরা, কিংবা মধ্যবিত্তরাও দিতে পারবেন তাদের অব্যবহৃত জামাকাপড় গুলো। নিরাপদ নোয়াখালী চাই নামক সংগঠনের হাত ধরেই এই প্রথম উদ্বোধন হলো মানবতার ভ্রাম্যমান দেয়ালের এই ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ। এর আগে দেশের বিভিন্ন জায়গায় মানবতার দেয়াল দেখা গেলেও দেখা যায়নি এমন ধরনের মানবতার ভ্রাম্যমার দেয়াল।

 

মানবতার ভ্রাম্যমান দেয়াল কি..?

শৈত্য প্রবাহের সাথে পড়ছে কনকনে শীত । শীতের সঙ্গে সমাগত আরও একটি চিরায়ত দৃশ্য। সেটি হলো দেশের আনাচে কানাচে, উড়াল সেতুর নিচে, ফুটপাতের ওপর, রাস্তারধারে, অসংখ্য অসহায় মানুষ পরস্পরের উত্তাপ নিয়ে জড়াজড়ি করে নিশি যাপন করছে। শীতের কামড় থেকে এই ভাগ্যহত ‘মনুষ্য শরীর গুলোকে’ রক্ষা করার জন্য গরম কাপড় ও নৈশ আশ্রয়ের ব্যবস্থা থাকা উচিত ছিল সরকারি ভাবে, সেই ব্যবস্থা যেহেতু নেই, সেহেতু খোলা আকাশকে চাঁদোয়া বানিয়ে গরিব,দুঃখী মানুষগুলো রাত্রিযাপন করছেন। এ অবস্থার মধ্য দিয়ে অনিবার্য ভাবে আরও একটি পৌষ সংক্রান্তিমুখী হবে এই অসহায় মানুষগুলো।

 

প্রতিবছর এ অবস্থা চলতেই থাকবে—এটি সমাজের বেশির ভাগ মানুষ মেনে নিলেও কিছু মহৎ লোক তা মানতে পারেন না। তাঁরা নিজেদের অবস্থান থেকে সাধ্যমতো এগিয়ে আসার চেষ্টা করেন। সম্প্রতি এসব শীতার্ত  মানুষকে কিছুটা উঞ্চতার ছোঁয়া দিতে ব্যতিক্রমধর্মী মহৎ এই উদ্যোগ নিয়েছে নোয়াখালীর জনপ্রিয় সামাজিক সংগঠন “নিরাপদ নোয়াখালী চাই”

 

তাঁরা একটি ভ্রাম্যমান দেয়াল নির্মাণ করেছেন। দেয়ালের এক পাশে বিত্তবানেরা তাঁদের অপ্রয়োজনীয় জামাকাপড় গুলো রেখে যেতে পারবেন। অন্য পাশ থেকে প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে যেতে পারবেন সুবিধাবঞ্চিত শীতার্ত মানুষগুলো। আসন্ন শীতের কথা মাথায় রেখে তাঁরা এই মহৎ উদ্যোগটি নিয়েছেন যার নেপথ্যে সার্বিক ব্যবস্থাপনায় আছেন নিরাপদ নোয়াখালী চাই সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান সাইফুর রহমান রাসেল ও নিরাপদ নোয়াখালী চাই বেগমগঞ্জ উপজেলা শাখার প্রধান সমন্বয়ক এ.আর টিটু।

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে এই মহৎ উদ্যোগটি ইতোমধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছে দেশের বিভিন্ন জেলায়।‘মানবতার দেয়াল’ শীর্ষক এই কার্যক্রমের মধ্যে তারুণ্যের যে ঐকতান শুরু হয়েছে, সেটি আশাবহ। এই কার্যক্রম শুধু সুবিধাবঞ্চিত মানুষের হাতে শীতবস্ত্র বা সাধারণ পোশাক পৌঁছে দেওয়া নয়, বরং জনগুরুত্ব সম্পন্ন আরও অনেক বিষয় এর সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারে।