বিজে২৪ডটকম:

নোয়াখালীর সোনাইমুড়িতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যূ বরণ করা ইতালি প্রবাসী ২ দিন চিকিৎসা নিয়েছিলেন মাইজদী প্রাইম হাসপাতালে। খবরটি প্রকাশ পেলে আজ সোমবার (১৩ এপ্রিল) হাসপাতালটি লক ডাউন ঘোষনা করে নোয়াখালী সিভিল সার্জন।

গত বৃহস্পতিবার (০৯ এপ্রিল) উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ড পশ্চিম চাঁদপুর গ্রামে মোরশেদ আলম (৪৫) নামের এক ইতালি প্রবাসী মারা গেছেন। এর আগে তিনি জ্বর ও শ্বাস কষ্ট নিয়ে নোয়াখালী জেলা শহরের প্রইম হাসপাতালে ভর্তি হয়ে ২দিন চিকিৎসা নেন। করোনার লক্ষণ দেখেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি গোপন রেখে চিকিৎসা চালিয়ে গিয়েছেন। পরে অবস্থার অবনতি হলে রুগীকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার শরীরের আরও অবনতি ঘটলে বৃহস্পতিবার (০৯ এপ্রিল) ভোরে ঢাকা নেয়ার পথে মোরশেদ আলমের মৃত্যু হয়।

এদিকে, নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কিছু ডাক্তার এবং ওয়ার্ড বয় সহ ৭-৮ জন সেই রুগীর সংস্পর্শে এসেছিলো। লোকটা মারা যাওয়ার পর (করোনা সনাক্ত নিশ্চিৎ হওয়ায়) ঐ ৭-৮ জন ডাক্তার এবং ওয়ার্ড বয়কেও হোম-কোয়ারান্টাইনে থাকতে বো হয়েছে।

তথ্য গোপন করে করোনা রুগীর চিকিৎসা প্রদান করার খবর জানাজানি হলে আজ সোমবার (১৩ এপ্রিল) রাত ১২টা থেকে ১৪ দিনের জন্য মাইজদী কোর্ট-সদর, হাসপাতাল রোড, প্রাইম হাসপাতাল সহ নোয়াখালী জেলা শহরকে লকডাউন ঘোষনা করেছেন সিভিল সার্জন নোয়াখালী।

নোয়াখালী জেলা শহরবাসীর জন্য বিষয়টি মারত্নক হুমকি বিবেচনা করে, কাউকে বাসা থেকে বের না হবার আহবান করা গেলো….