বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত সাত হাজার ৭৭৪ জন চিকিৎসক, নার্স ও অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে দুই হাজার ৫৪২ জন চিকিৎসক, এক হাজার ৮৬০ জন নার্স ও তিন হাজার ৪০ জন স্বাস্থ্যকর্মী। সোমবার (১০ আগস্ট) পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত ও উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ৭৪ জন চিকিৎসক।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মধ্যে সর্বোচ্চ সংখ্যক রয়েছেন রাজধানী ঢাকায়। ঢাকায় ৮০৩ জন চিকিৎসক, ৭৭২ জন নার্স ও ৪৪০ জন স্বাস্থ্যকর্মী রয়েছেন। তবে আক্রান্তদের অনেকেই ইতোমধ্যে সুস্থ হয়ে কাজে যোগদান করেছেন।

এদিকে করোনায় চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মৃত্যুতে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন ও মহাসচিব ডা. মো. ইহতেশামুল হক চৌধুরী গভীর শোক প্রকাশ করছেন। এছাড়া অসুস্থদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেছেন বিএমএ নেতারা।

বিএমএ নেতৃবৃন্দ মৃত্যুবরণকারী চিকিৎসকদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন, তাদের জন্য আমাদের কান্না নয় বরং তাদের বীরত্বগাঁথা ও সাহসী আত্মোৎসর্গ আমাদের গৌরবান্বিত করেছে এবং আগামীর দুর্গম যাত্রায় আলোর পথ দেখিয়েছে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর এতে প্রথম মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ। গত ২৪ ঘণ্টায় এ ভাইরাস কেড়ে নিয়েছে আরও ৩৯ জনের প্রাণ ফলে করোনায় মোট মারা গেলেন তিন হাজার ৪৩৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও দুই হাজার ৯০৭ জনের মধ্যে। এতে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা এখন দুই লাখ ৬০ হাজার ৫০৭।

বৈশ্বিক পরিস্থিতি

গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহর থেকে ছড়ানোর পর গোটা বিশ্বকে মৃত্যুপুরীতে পরিণত করেছে করোনাভাইরাস। এতে আক্রান্তের সংখ্যা দুই কোটি ২৫ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। মৃতের সংখ্যা সাত লাখ ৩৯ হাজারের বেশি। তবে সুস্থ রোগীর সংখ্যা এক কোটি ৩১ লাখ ছাড়িয়েছে।