প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হলেন নোয়াখালীর ছাত্র রাজনীতির  আইকন এ,কে,এম জাকির হোসেন জুয়েল।

 

বিজে২৪নিউজ :

 

প্রথমবারের মত প্রধানমন্ত্রীর সফর সংগী হলেন নোয়াখালীর ছাত্ররাজনীতির আইকন, নোয়াখালীতে যিনি ছাত্রনেতা গড়ার কারিগর নামে অভিহিত ,নোয়াখালীর কৃতি সন্তান এ,কে,এম জাকির হোসেন জুয়েল। জাতিসংঘের ৭৩তম সাধারণ অধিবেশনে যোগদিতে প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হলেন তিনি।

 

জাতিসংঘের ৭৩তম সাধারণ অধিবেশনে যোগদানের উদ্দেশ্যে গত ২০ সেপ্টেম্বর ঢাকা ত্যাগ করেন তিনি, প্রধানমন্ত্রীর সফর সংগী  হিসেবে তিনি জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান, সভা, সেমিনারে যোগদান এবং প্রবাসীদের সংবর্ধ্বনা অনুষ্ঠানে অংশগ্রহন করবেন।

 

 

আন্তরিক আচার ব্যবহার সামাজিক দূরদৃষ্টি আর তারুন্যে ভরা সৃজনশীল ও মেধাবী সাবেক এই ছাত্রনেতা বর্তমানে আওয়ামীলীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক ।

 

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার এই  কৃতিসন্তান  বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক আইন সম্পাদক হিসাবে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। তাছাড়া বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন। ১/১১ -তে    এই বিপ্লবী ছাত্রনেতা নেত্রীর মুক্তির আন্দোলনে রাজপথ-কে মিছিল-মিটিং আর স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করে তুলেছিলেন, যার একটাই উদেশ্য  ছিল প্রিয় মাতৃময়ী নেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তি।

 

একটি জনসভায় বক্তব্য রাখছেন এ কে এম জুয়েল।

দলের দুঃসময়ে কারাবরনকারী এই তরুন নেতা নিজ এলাকার দলীয় এবং সর্বস্তরের জনগনের কাছে একটি পরিচ্ছন্ন রাজনীতির উদাহরণ। ইতোমধ্যে স্বীয় চেষ্টা, সততা ,নিষ্ঠা ও কর্ম দক্ষতায় মাতৃময়ী নেত্রীর কাছে একটি মজবুত আস্থা ,বিশ্বাস ও ভালবাসার জায়গা তৈরী করেছেন।

 

তার একটাই আর্তি জীবনের শেষ সময় টুকু পর্যন্ত তিনি সেনবাগ-সোনাইমুড়ীর নির্যাতিত মানুষের পাশে থাকতে চান এবং হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন সোনার বাংলা গড়ার ক্ষেত্রে শেখ হাসিনার  একজন সারথী সহযোদ্ধা হতে চান।

 

এই সৃজনশীল তরুন নেতা সকলের  কাছে দোয়া প্রার্থী ।  অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে দেশে ফিরে আসছেন এই  উদ্যমী তরুন রাজনীতিবিদ।