“কুমিল্লা বিভাগ হচ্ছে। যাদের সঙ্গে নিতে চেয়েছিলাম তারা আসবে না। তবে ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং চাঁদপুর থাকছে ।”  বৃহস্পতিবার (২৫ অক্টোবর ২০১৮) দুপুরে কুমিল্লায় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনের উদ্বোধন শেষে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের এ বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে নোয়াখালী বিভাগ আন্দোলন।

নোয়াখালী বিভাগ আন্দোলন মনে করে চট্টগ্রাম বিভাগ ভেঙ্গে আরেকটি প্রশাসনিক বিভাগের প্রয়োজনের প্রেক্ষিতে সরকারের পক্ষ থেকে সুস্পষ্ট ঘোষণার আগে আইনমন্ত্রী কিভাবে কুমিল্লা বিভাগ হওয়ার নিশ্চয়তার কথা বললেন? এ ধরণের নীতি নির্ধারণী বিষয়ে ঘোষণা একমাত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রীই দিতে পারেন। অনির্বাচিত ট্যাকনোক্র্যাট মন্ত্রীর পক্ষে এ ধরণের ঘোষণা শোভনীয় নয়।

তাছাড়া রাজধানীর নিকটবর্তী জেলায় শুধু মাত্র ৩টি জেলা নিয়ে বিভাগ গঠন না করে দেশের দক্ষিণপূর্ব উপকূলীয় জেলাগুলোর সমন্বয়ে নোয়াখালীতে বিভাগীয় কর্পোরেট স্থাপন করলে প্রশাসনিক বিন্যাস ও বিকেন্দ্রীকরণ আরো সুসম ও শক্তিশালী হবে। বাংলাদেশের কয়েকটি জেলা থেকে আয়তনে বড় হাতিয়া উপজেলাকে জেলা গঠন এবং নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর (বৃহত্তর নোয়াখালী) ও পার্শ্ববর্তী জেলাগুলো নিয়ে নোয়াখালীতে দেশের আরেকটি প্রশাসনিক বিভাগ বাস্তবায়নের উপর জোর দেন নোয়াখালী বিভাগ আন্দোলন।

নোয়াখালী বিভাগ আন্দোলনের আহবায়ক মোহাম্মদ ঈমাম হোসেইন ও সদস্য সচিব আরেফিন জোবায়ের স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে যৌথ বিবৃতিতে উপরোক্ত মন্তব্য ও দাবি করা হয়।
———–প্রেস বিজ্ঞপ্তি।