নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালী জেলার জনপ্রিয় সাংবাদিক জাতীয় দৈনিক আলোকিত সকাল পত্রিকার স্টাপ রিপোর্টার ও বাংলাদেশ অনলাইন জার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন নোয়াখালী জেলা শাখার সভাপতি এবং বেগমগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবের যুগ্ন সাধারণ-সম্পাদক রিপন মজুমদার দীর্ঘদিন থেকে হার্টের অসুস্থতায় ভুগছেন ডাক্তারের পরামর্শে চিকিৎসা নিলেও নেই ভাল কোন অবস্থা,অন্যদিকে এই হতভাগা সাংবাদিকের একমাত্র কণ্যা জম্মলগ্ন থেকেই প্রতিবন্ধী রয়েছে তাঁর চোখের সমস্যা দীর্ঘদিন থেকে মেয়ে অধরার চোখের জন্য বিভিন্ন ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে চিকিৎসা করিয়ে আসছেন কিন্তু অধরার চোখের ভাল কোন পদক্ষেপ নেই বরং ক্রমেই অন্ধত্বের দিকেএগিয়ে চলছে ৫ম শ্রেনিতে পড়ুয়া প্রতিবন্ধী অধরা। চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অধরার চোখ ভাল করতে হলে দেশের বাহিরে গিয়ে উন্নত চিকিৎসা করে অপারেশন করতে হবে।

রিপন মজুমদার যদিও পেশাগতভাবে একজন সাংবাদিক কিন্তু পরিবারে নেই কোন অর্থ বা সম্পত্তি, কোন রকম নিজের পরিবার নিয়ে ভাড়া বাসায় বসবাস করেন এই সাংবাদিক। একমাত্র প্রতিবন্ধী মেয়ে অধরার চোখের অপারেশন করার জন্য এবং নিজের হার্টের চিকিৎসা করার জন্য আর্থিক কোন সংগতি নেই এই হতভাগা সাংবাদিকের। নোয়াখালী জেলায় দীর্ঘদিন থেকে রিপন মজুমদার জাতীয় বিভিন্ন পত্রিকায় এবং অনলাইনে সংবাদকর্মী হিসেবে কাজ করে আসছেন, সাধারণ জনগনের মধ্যে রয়েছে তাঁর জনপ্রিয়তা ইতিমধ্যে বেগমগঞ্জ উপজেলার সাংবাদিক গণ রিপন মজুমদারকে আর্থিক এবং মানসিক ভাবে সহযোগীতা করেছেন।

সাংবাদিক রিপন মজুমদারের প্রতিবন্ধী মেয়ে অধরার চোখের অপারেশনের জন্য প্রায় ৪ লক্ষ্য টাকা প্রয়োজন কিন্তু রিপন মজুমদারের সাধ্য অনুযায়ী এত বিশাল অংঙ্কের টাকার যোগান দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না,তাই তাঁর প্রতিবন্ধী মেয়ের চোখ অপারেশন করে উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনি বাংলাদেশের সকল বিত্তবানদের প্রতি সাহায্য – সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন। সাংবাদিক রিপন মনে করেন সমাজের ধনী এবং বিত্তবানরা যদি সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেন তাহলে অধরার চোখের চিকিৎসা করানু সম্ভব হবে এবং তাঁর মেয়ে ফিরে পাবেন সুন্দর একটা জীবন এবং ফিরে পাবে চোখের দৃষ্টি। চোখ মানুষের মূল্যবান সম্পদ আর সেই মূল্যবান সম্পদ হারিয়ে যাওয়ার পথে ৫ শ্রেনিতে পড়ুয়া প্রতিবন্ধী অধরা.. অধরা বলেন আমি আমার চোখের দৃষ্টি পুনরায় ফিরিয়ে পেতে চাই আমি যাতে পড়ালেখা করতে পারি সবার মতো, আমিও স্কুলে গিয়ে সকলের সাথে পড়ালেখা করতে চাই কিন্তু আমি যদি অন্ধ হয়ে যাই তাহলে আমার সেই স্বপ্ন পূরন হবে না। অন্যদিকে এই প্রতিবন্ধী অধরার বাবা মেয়ের চিকিৎসার জন্য চারদিকে অর্থ সংগ্রহের জন্য ঘুরাঘুরি করছেন কিন্তু প্রয়োজনীয় অর্থ সংগ্রহ হয় নাই এখনও।।

তাই তাদের বাবা-মেয়ের সু-চিকিৎসার জন্য সকলের সু-দৃষ্টি এবং সহযোগীতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য সকলের কাছে বিনিত অনুরোধ জানিয়েন গ্রামের সাধারন জনগন ও অন্যান্য সংবাদকর্মীগণ।

সাংবাদিক রিপন মজুমদারের প্রতিবন্ধী মেয়ের চোখের অপারেশনের চিকিৎসার জন্য সহযোগীতা করার জন্য নিম্নের ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করতে পারেন। উক্ত নাম্বার’টি হতভাগা সাংবাদিক রিপন মজুমদারের:- ০১৭১১০৫১২০১, ০১৮১৯০৪৮৮৩৮ প্রতিবন্ধী অধরার মায়ের ফোন নাম্বার:-০১৮৪৩৮০১৭৪০ বিকাশ নং:-০১৮১৯০৪৮৮৩৮ এবং  ব্যাংক একাউন্ট নং- ০২৯১৩৪০০০৭০৫৩, নাম-রিপন মজুমদার , সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, চৌমুহনী শাখা, নোয়াখালী ।