মালেক উকিলের ৩ নাতনী ব্যরিস্টার

 

অনলাইন ডেস্ক:

 

চট্টগ্রামের বনেদি পরিবারের সন্তান প্রিয়াংকা আহসান, ফাতিমা ওয়ারীথাহ আহসান ও প্রিয়া আহসান। তারা আপন তিন বোন। তিনজনই ব্যারিস্টার। যা বাংলাদেশে বিরল। নানা নোয়াখালীর কৃতি সন্তান আব্দুল মালেক উকিল ছিলেন প্রখ্যাত আইনজ্ঞ, জাতীয় সংসদের   স্পিকার ও বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার সদস্য।

 

বাংলাদেশের স্বাধীনতায় নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগের সভাপতিও ছিলেন তিনি। আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত বাবা আবদুল্লাহ আল আহসান, দেশের শিল্পখাতের অন্যতম আইকন। ছোটবেলা থেকেই নেহেরু, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও আইনজ্ঞ নানার গল্প শুনে বড় হওয়া তিন বোন বাবার অনুপ্রেরণায় ব্যারিস্টারি পড়ার সিদ্ধান্ত নেন। বাবার স্বপ্ন পূরণে এক এক করে তিন বোন পাড়ি জমান লন্ডনে।

 

তাদের ভাষায় ‘প্রথম থেকেই বাবার কনসেপ্ট ছিল- হলে তিন জনই ব্যারিস্টার হবে। দেয়ার ইজ নো আদার অপশন। এ কারণে আমরা কখনও অন্য কোনো অপশন চিন্তা করিনি।’ ব্যারিস্টারি পাশ করে দেশে এসে বাবার স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে তিন বোন শুরু করেছেন আইন পেশা। প্রখ্যাত আইনজীবী ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ ব্যারিস্টার এম. আমীর উল ইসলামের চেম্বারে কাজ শুরু করা বড় বোন ব্যারিস্টার প্রিয়াংকা আহসান আইন পেশায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান।

 

পাশাপাশি শিক্ষা ও সমাজ কল্যাণমূলক কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত করে পরিবারের ঐতিহ্য ধরে রাখতে চান। সেভ দ্যা চিলড্রেন, হোপ ফর চিলড্রেন,অ্যাকশন এইডসহ বিভিন্ন এনজিওতে কাজ করার অভিজ্ঞতা সম্পন্ন মেঝ বোন ব্যারিস্টার ফাতিমা আহসান আইন পেশায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে শুধু দেশেই না বিশ্বজনীন ভাবে আইন প্র্যাকটিস করে তার মেধা কাজে লাগাতে চান।

 

নিজেদের প্রতিষ্ঠিত এনজিও’র মাধ্যমে নারীদের মানসিক স্বাস্থ্য সেবা দিয়ে যেতে চান তিনি। অপরদিকে, সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে কাজ শুরু করা ছোট বোন ব্যারিস্টার প্রিয়া আইন পেশায় লেগে থেকে সক্রিয়ভাবে কাজ করে যেতে চান। সমাজের অবহেলিত-দরিদ্র মানুষের জন্য কাজও করতে চান তিনি।