পেনাল্টি মিস করেও ম্যাচের হিরো মেসি

 

স্পোর্টস ডেস্ক:

 

পেনাল্টি বরাবরের মতোই ফুটবল জাদুকরের কাছে মুর্তিমান আতঙ্ক। এই পেনাল্টি মিসের কারণেই কোপা আমেরিকার ফাইনালে চিলির কাছে শিরোপা হারাতে হয়েছিল আর্জেন্টিনাকে। রাগে ক্ষোভে শেষ পর্যন্ত হুট করেই অবসরে চলে যান।

 

আবারো আলোচনায় মেসির পেনাল্টি মিস। তবে মিস করলেও এদিন দল হারেনি। লা লিগায় তার দল জিতেছে ১-০ গোলে। গত ম্যাচে নামার আগে সব প্রতিযোগিতা মিলে টানা তিন ম্যাচে ড্র করে জয় বঞ্চিত বার্সেলোনা। অবশেষে ড্রয়ের বন্দি থেকে বেরিয়েছে কাতালান ক্লাবটি।

 

স্প্যানিশ লিগের ম্যাচে গতকাল রাতে নিজেদের মাঠ ন্যূ ক্যাম্পে ভায়াদোলিদকে আতিথেয়তা দেয় বার্সেলোনা। এদিন বার্সা সভাপতির সঙ্গে ভিআইপি গ্যালারিতে বসে খেলা দেখেন সাবেক বার্সা খেলোয়াড় ও  ভায়াদোলিদের মালিক বিশ্বকাপ জয়ী ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তী রোনাল্ডো।

 

নিজেদের মাঠে ম্যাচের শুরুতে রিয়াল ভায়াদোলিদের বিপক্ষে চেনা রূপে দেখা যায়নি বার্সাকে। উল্টো বেশ কয়েকবার তাদের রক্ষণে ভীতি ছড়ায় অতিথিরা। তবে বিরতিতে যাওয়ার আগেই লিড পেতে সক্ষম হয় স্বাগতিকরা।

 

ম্যাচের ৪৩তম মিনিটে মেসির স্পট কিকে গোল পায় বার্সা। জেরার্ড পিকের সঙ্গে প্রতিপক্ষ মিডফিল্ডার মিচেলের সংঘর্ষ হলে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেন রেফারি। সেখান থেকে গোল করে দলকে এগিয়ে নেন মেসি।

 

 

মৌসুমে এটি ছিল তার ২২তম লিগ গোল। আর সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মৌসুমে ৩০তম গোল। এ নিয়ে টানা ১১ মৌসুমে ৩০ গোলের মাইলফলক ছুঁলেন মেসি। তাছাড়া ইউরোপের শীর্ষ ৫টি লিগের মধ্যে একমাত্র তিনিই এই মৌসুমে প্রথম ৩০ গোলের মাইলফলক ছুঁলেন। মানে সব ধরনের প্রতিযোগিতা মিলিয়ে ইউরোপের সেরা ৫টি লিগের খেলোয়াড়দের মধ্যে সর্বোচ্চ গোল তারই।

 

বিরতির পরে এসে আক্রমণ বাড়ালেও গোলের দেখা পাচ্ছিল না কেউই। ম্যাচের শেষদিকে ডেম্বেলের পরিবর্তে নামা কুতিনহোকে ৮৪তম মিনিটে ডি-বক্সে ফাউল করলে আবারো পেনাল্টি পায় বার্সেলোনা। কিন্তু এ যাত্রায় আর গোল করতে পারেননি বার্সা অধিনায়ক।

 

সবচেয়ে বড় কথা হল মেসির পেনাল্টি ঠেকিয়ে দেয়া ভায়াদোলিদের গোলরক্ষকও লা মাসিয়ার খেলোয়াড় ছিলেন। মেসিদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে খেলেছেন বার্সেলোনার বি দলেও। একটি ম্যাচ খেলেছেন মেসিদের সঙ্গে বার্সেলোনার মূল দলের হয়েও। কিন্তু কখনোই নিজেকে দলের এক নম্বর গোলরক্ষক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে না পারায় ২০১৭ সালে তাকে ভায়াদোলিদের কাছে বিক্রি করে দিয়েছে বার্সা।

 

লিগে এ জয়ের পর ২৪ ম্যাচে ১৬ জয় ও ছয় ড্রয়ে শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার পয়েন্ট ৫৪। দিনের অন্য ম্যাচে রায়ো ভায়োকানোর মাঠে ১-০ গোলে জেতা অ্যাথলেটিকো মাদ্রিদ ৪৭ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে। এক ম্যাচ কম খেলা রিয়াল মাদ্রিদ ৪৫ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার তৃতীয় স্থানে চলে এসেছে।